বিপিএলের ষষ্ঠ আসরের রেকর্ড

রেকর্ড সেঞ্চুরি: বিপিএলের চলতি আসরে এরই মধ্যে পাঁচটি সেঞ্চুরি হয়ে গেছে। এক আসরে যা সর্বোচ্চ। সেঞ্চুরি পেয়েছেন লাউরি ইভান্স, রাইলি রুশো, অ্যালেক্স হেলস, এবি ডি ভিলিয়ার্স এবং এভিন লুইস। এর আগে ২০১২ সালে চারটি সেঞ্চুরি হয়। ২০১৩ ও ২০১৭ সালের আসরে সেঞ্চুরি ছিল তিনটি করে। বিপিএলে একাধিক সেঞ্চুরি আছে কেবল ক্রিস গেইলের পাঁচটি এবং এভিন লুইসের দুটি।

ব্যক্তিগত খরুচে বোলিং: খুলনা টাইটান্সের মোহাম্মদ সাদ্দাম চলতি আসরে চার ওভারে ৫৯ রান দিয়েছেন। যা সবচেয়ে খরুচে বোলিং। কুমিল্লা ওই রান নেয় তার ওভার থেকে। এছাড়া চলতি আসরে সিলেটের আল-আমিন হোসেন ও মেহেদি হাসান রানা দিয়েছেন ৫৭ করে রান। এর আগে সর্বোচ্চ খুরুচে ছিলেন শ্রীলংকার দিলশান মুনাবীরা। তিনি ২০১৫ সালের আসরে ৫৪ রান দেন।

বিপিএলে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রান: বিপিএলের ২০১২ সালের আসর থেকে চলতি আসর পর্যন্ত সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক মুশফিকুর রহিম। তিনি ৬৯ ম্যাচে ১৭২৭ রান করেছেন। তামিম ৫৪ ম্যাচে করেছেন ১৬২৯ রান। মাহমুদুল্লাহ ৭৪ ম্যাচ খেলে ১৬০৫ রান। এছাড়া সাকিব ৭১ ম্যাচে ১৪৪৯ এবং সাব্বির ৭৩ ম্যাচে ১৩৬৫ রান করেছেন।

এক আসরে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত রান: এর আগে ২০১২ সালের আসরে পাকিস্তানের মোহাম্মদ শেহজাদ ১২ ম্যাচে ৪৮৬ রান করেন। এবার রুশো তাকে ছাড়িয়ে গেছেন। তিনি করেছেন ১১ ম্যাচে ৫১৪ রান। গেইল গত মৌসুমে করেন ৪৮৫ রান। এছাড়া ২০১৬ সালের আসরে তামিম ১৩ ম্যাচ খেলে ৪৭৬ রান করেন।

সর্বোচ্চ এক্সট্রা রান: কুমিল্লার বিপক্ষে খুলনা চলতি আসের ২৪ রান দিয়েছে অতিরিক্ত। যা বিপিএল ইতিহাসে দ্বিতীয় অবস্থানে আছে। প্রথমে আছে ২০১৭ সালে রাজশাহী কিংসের বিপক্ষে ঢাকার দেওয়া ২৭ রান। এছাড়া ২০১৩ ও ২০১৭ সালে ২৩ রান করে আছে।

এক ম্যাচে সর্বোচ্চ রান: এক ম্যাচের দুই ইনিংস মিলিয়ে সর্বোচ্চ রান ওঠে ২০১৩ সালের আসরে। বরিশাল ও রাজশাহী দুই ইনিংস মিলিয়ে তুলেছিল ৪২২ রান। চলতি আসরে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪০৬ রান তুলেছে রংপুর রাইডার্স এবং চিটাগং ভাইকিংস। তিনে আছে এবারের আসরের খুলনা টাইটান্স এবং চিটাগংয়ের ৪০২ রান।

এক ইনিংসে সর্বোচ্চ রান: বিপিএলের ২০১৩ সালের আসরে উঠেছিল ২১৭ রান। ওই রানটি টিকে ছিল দীর্ঘদিন। এবার রংপুর রাইডার্স তুলেছে সর্বোচ্চ ৪ উইকেট হারিয়ে ২৩৯ রান। দুইয়ে আছে চলতি আসরে কুমিল্লার তোলা ৫ উইকেটে ২৩৭ রানের ইনিংসটি। এছাড়া চারে আছে এবার চিটাগংয়ের তোলা ২১৪ রানের ইনিংসটি।

এক আসরে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত উইকেট: কেভিন কুপার ২০১৬ সালের আসরে ২২ উইকেট নিয়েছিলেন। সাকিব আবার গত আসরে ২২ উইকেট নিয়ে তার পাশে নাম লেখান। এবার তাসকিন আছেন অপেক্ষায়। তার নামের পাশে আছে ২১ উইকেট। গ্রুপ পর্বের শেষ ম্যাচ থেকে তিনি দুটি উইকেট পেলে এক আসরে সর্বোচ্চ উইকেটের মালিক হবেন। একটি পেলে বসবেন কুপার-সাকিবদের পাশে। না পেলে যৌথভাবে তিনেই থাকবেন।

বিপিএলে সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত উইকেট: এবারের আসরে সাকিব বিপিএলে একশ’ উইকেটের মাইলফলক ছুঁয়েছেন। ৭১ ম্যাচে ১০০ উইকেট নিয়েছেন তিনি। তার ধারে কাছে নেই আর কেউ। শাফিউল এবং মাশরাফি ৬৮ উইকেট নিয়ে দুই ও তিনে আছেন।

সর্বোচ্চ রানের জুটি: বিপিএলের ২০১৭ সালের আসরে রেকর্ড ২০১ রান তুলেছিলেন গেইল এবং ম্যাককুলাম। ২০১৩ সালের আসরে নাফিজ এবং ভিনসেন্ট গড়েন  ১৯৭ রানের জুটি। চলতি আসরে ডি ভিলিয়ার্স এবং হেলস তুলেছেন ১৮৪ রান। আর রুশো এবং হেলস চতুর্থ সর্বোচ্চ ১৭৪ রানের রেকর্ড।

এক ইনিংসে জোড়া সেঞ্চুরি: বিপিএলের চলতি আসরে এক ইনিংসে রুশো এবং হেলস সেঞ্চুরি করেছেন। টি-২০ ক্রিকেট এমন ঘটনা আছে তিনটি। আইপিএলে ডি ভিলিয়ার্স এবং কোহলির। মিডলসেক্সের হয়ে কেভিন ও ব্রেইন এবং হামিশ মার্শাল।

হ্যাটট্রিকের হ্যাটট্রিক: চলতি আসরে আলিস ইসলাম, ওহাব রিয়াজ এবং আন্দে রাসেল হ্যাটট্রিক করেছেন। বিপিএলে আর কোন আসরে তিনটি হ্যাটট্রিক হয়নি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest

সংস্করণ