চীনের ওয়ান রোডে হাঁটছে সৌদি

বিশ্বকে এক ডোরে বাঁধতে চীনের উচ্চাকাক্সক্ষী ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড (ওবর) প্রকল্পে যোগ দিল সৌদি আরব। কয়েক দশকের মিত্র দেশ পাকিস্তানের হাত ধরে এ প্রকল্পে বিশাল অঙ্কের বিনিয়োগের ঘোষণা দিয়েছে দেশটি।

গোয়াদর সমুদ্রবন্দরটিও চীনের হাতে নির্মিত হচ্ছে। সংযোগ করা হচ্ছে ওয়ান বেল্ট ওয়ান রোড প্রকল্পের সঙ্গে। রোববার গোয়াদর সফরকালে বিশাল ওই অর্থ সহায়তার ঘোষণা দেন সৌদি জ্বালানিমন্ত্রী খালিদ আল ফালিহ।

দ্য ইকোনমিকস টাইমস জানায়, এদিন বালুচিস্তান প্রদেশের গোয়াদর বন্দরে দাঁড়িয়ে ওই আর্থিক সাহায্যের কথা ঘোষণা করেন খালিদ আল ফালি। ওই অর্থ ভারতীয় মুদ্রায় দাঁড়ায় প্রায় সত্তর হাজার কোটি রুপি। তিনি জানিয়েছেন, ‘পাকিস্তানের আর্থিক উন্নয়নের শরিক হতে চায় সৌদি আরব। সেজন্যই বানানো হচ্ছে তৈল শোধনাগার।

পাশাপাশি চিন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডরের অংশীদারও হতে চাই আমরা।’ ফেব্রুয়ারিতেই পাকিস্তান সফরে আসবেন সৌদির যুবরাজ মোহম্মদ বিন সালমান। সেখানেই পাকিস্তানের সঙ্গে চুক্তি সই করা হবে বলে জানিয়েছেন সৌদির শক্তিমন্ত্রী।

আগস্টে ক্ষমতায় আসার পর থেকেই দেনার দায়ে জর্জরিত পাকিস্তানকে দেউলিয়া হয়ে যাওয়া থেকে উদ্ধার করতে পৃথিবীর বিভিন্ন দেশের কাছে আর্থিক সাহায্য চাচ্ছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। কখনও চীন, কখনও সৌদি, কখনওবা সংযুক্ত আরব আমিরাতের শাসকদের কাছে। সবার কাছেই হাত পেতেছেন ইমরান।

ঋণ মওকুফ করতে আলাপ-আলোচনা চালাচ্ছেন আন্তর্জাতিক অর্থ তহবিলের (আইএমএফ) সঙ্গেও। এই পরিস্থিতিতে সৌদির এই আর্থিক সাহায্যে আপাতত কিছুটা হলেও হাঁপ ছেড়ে বাঁচার সুযোগ পেলেন ইমরান- এমনটাই মনে করছেন আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা।

যদিও সৌদির এই আর্থিক সাহায্য পাকিস্তানের জন্য আরও বড় বিপদ ডেকে আনছে কি না, তা নিয়েও প্রশ্ন উঠছে বিভিন্ন মহলে। কারণ চীন-পাকিস্তান অর্থনৈতিক করিডরের একটা প্রান্ত হল গোয়াদর সমুদ্রবন্দর।

এই করিডরের ২ হাজার কিলোমিটার দীর্ঘ রাস্তা, রেলপথ এবং বন্দরের মাধ্যমে পশ্চিম চীন যুক্ত হয়ে যাচ্ছে ভারত মহাসাগরের সঙ্গে। পাক অধিকৃত কাশ্মীর এবং বেলুচিস্তানের বুক চিরে এই রাস্তা তৈরি হলে চিনের কাশগড় থেকে সহজেই পৌঁছে যাওয়া যাবে আরব সাগর।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest

সংস্করণ