বাতজনিত ব্যথা নিয়ে কিছু কথা

রিউম্যাটোলজি চিকিৎসাবিজ্ঞানের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ একটি শাখা। তবে এর অনেক প্রশাখাও রয়েছে। আমাদের মধ্যে বাতজনিত ব্যথা নিয়ে রয়েছে বিভিন্ন ভ্রান্ত ধারণা। অনেকেই আঘাতজনিত ব্যথা ছাড়া হাড়, জোড়া ও মাংসপেশির দীর্ঘস্থায়ী যে কোনো ব্যথা বাত বলে মনে করেন। তবে সহজ বাংলায় বাতরোগের মতো জটিল বিষয় বর্ণনা করা কঠিন। অসংখ্য মানুষ, বিশেষ করে বয়স্করা ঘাড়, কোমর, হাঁটু বা কাঁধব্যথায় বেশি ভুগে থাকেন। এ রোগ সম্পর্কে সাধারণ জ্ঞান ও সচেতনতা এটি প্রতিরোধ ও প্রতিকারে সহায়ক ভূমিকা পালন করতে পারে।

বাতরোগ নিয়ে অনেক ভুল ধারণা আছে। অনেকে মনে করেন, দীর্ঘস্থায়ী ব্যথা হলেই তা বাতরোগ। এমন ভাবনা মোটেও ঠিক নয়। কারণ স্পন্ডালাইটিস, অস্টিওআর্থ্রাইটিস ও অস্টিওপোরোসিসের মতো হাড়ের ক্ষয়জনিত রোগ থেকে শুরু করে শরীরের প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা আক্রান্ত হওয়ার রোগ লুপাস, রিউম্যাটয়েট আর্থ্রাইটিস কিংবা ভাস্কুলাইটিস পর্যন্ত সবই বাতরোগের অন্তর্ভুক্ত।

যে কারণে হয়ে থাকে : বাতরোগ হওয়ার অনেক কারণ আছে। আবার নির্দিষ্ট কোনো কারণ নেই, দুটিই সত্য। এ রোগের কারণ উদ্ঘাটন নিয়েও গবেষণার অন্ত নেই। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই রোগগুলো মাল্টি-ফ্যাক্টরিয়াল অর্থাৎ জেনেটিক প্রবণতার পাশাপাশি ট্রিগারিং এজেন্টও রয়েছে।

সবশেষে বলি, বাতরোগ নিয়ে একুশ শতকের প্রথম দশক বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা হাড় ও জোড়া রোগের দশক হিসেবে ঘোষণা করেছে। এ সম্পর্কে বিশ্বব্যাপী চলছে গবেষণা। লক্ষ্য একটাই, মানুষের মধ্যে এ সম্পর্কে সচেতনতা বাড়িয়ে তোলা। বাতরোগ সম্পর্কে নিজে সচেতন হোন, অন্যকে সচেতন হতে উদ্বুদ্ধ করুন। এবারে চিকিৎসক ও সমাজকর্মী থেকে শুরু করে সব শ্রেণি ও পেশার মানুষের এগিয়ে আসা উচিত।

লেখক : ডা. মো. রেজাউল আমিন (টিটু)

ব্রেইন অ্যান্ড স্পাইনাল সার্জন

সহযোগী অধ্যাপক নিউরো সার্জারি বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল ইউনিভার্সিটি, শাহবাগ, ঢাকা

 

সূত্র : দৈনিক আমাদের সময়

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Pin It on Pinterest

সংস্করণ